বিবিধ আপিল এর আর্জির নমুনা। Drafting।

সহকারী জজ আদালত থেকে জেলা জজ আদালতে আপিল।

মাননীয়,

ফেনী জেলা ও দায়রা জজ আদালত

জেলা- ফেনী

বি.আ………/২৪ ইং।

(তাঁহার দেওয়ানী আপীল এখতিয়াধীন)।

তায়দাদ মং- ৩,০০,০০০/- টাকা।

১। আবুল কালাম,

২। আবদুল সাত্তার,

৩। জাকিয়া খাতুন,

৪। বিবি কুলসুম,

৫। তাহামিনা আক্তার,

৬। শারমীন আক্তার,

সর্ব পিতা- মৃত জাকির হোসেন, সাং- পাঠান নগর, থানা- ছাগলনাইয়া, জেলা- ফেনী।

= বিবাদী আপীলেন্ট গন।

-বনাম-

১। মোঃ রফিক,

২। মোঃ ইকবাল,

সর্ব পিতা- মৃত জালাল আহম্মদ,

৩। সফিক,

৪। রেজিয়া খাতুন,

৫। শিল্পী,

৬। ফারজানা,

চলমান পাতা- ০২

পাতা-০২

৭। জাকিয়া,

৮। নাচিমা,

সর্ব পিতা- মৃত কামাল আহম্মদ,

৯। রায়হান,

১০। মোঃ ইকবাল

১১। জান্নাতুল

১২। হোসনে আরা বেগম

সর্ব পিতা- মৃত জালাল আহম্মদ, সাং- পাঠান নগর, থানা- ছাগলনাইয়া, জেলা- ফেনী।

== বাদী রেসপনডেন্টগন।

সূত্রঃ- মাননীয়, ছাগলনাইয়া সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে বাদী রেসপনডেন্ট কর্তৃক আনিত ২০২৩ইং সনের ১৮২নং স্বত্ব ঘোষনার মামলায় বিবাদী আপীলেন্ট গনের বিরুদ্ধে বাদী রেসপনডেন্ট কর্তৃক আনিত অস্হায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা ঐ আদালতের সিনিয়র সহকারী জজ জনাব আশেকুর রহমান কর্তৃক ২/০২/২০২৩ইং তারিখের মঞ্জুরের আদেশ দ্বারা বিবাদী আপীলেন্টগন বিশেষ ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হইয়া বর্তমান আপীল মামলা আনয়ন করিতেছে।

নিবেদন এই,

১। বাদী রেসপনডেন্টগন সূত্রে বর্নিত মামলায় বলেন যে, ছাগলনাইয়া থানাধীন সি/এস ১৪৫ নং খতিয়ানের ১৯০৮ দাগের ০৭ ডিং ও ১৮৮৫ দাগে ০৩ ডিং ভূমিতে জানবস্তু মালিক দখলকার থাকিয়া মারা গেলে নূরুল হক, আবদুর রব, নূরুল আমিন, নুরের জামান ও জাকির হোসেন ৫ পুত্র প্রত্যেকে ১৯০৮ দাগে ০১.৪০ ডিং হারে ও ১৮৮৫ দাগে ০০.৬০ ডিং হারে মালিক দখলকার নিযুক্ত হয়। নূরুল হক ও আবদুর রব ১১/১১/১৯৫৮ ইং তারিখের ৪৯৯৩ নং এওজ দলিল মূলে ১৯৫৯ ইং তারিখের ২৫০৫ নং সাফ কবলা মূলে ১৯০৮ দাগে ০২.৮০ ডিং ও ১৮৮৫ দাগের ০০.৬০ ডিং ভূমি নূর আহাম্মদ ও মকবুল আহাম্মদকে এওজ প্রদান করেন। নুরুল আমিন ২৫/০৪/১৯০৮ দাগে ০১.৪০ ডিং ও ১৮৮৫ দাগে ০০.৬০ ডিং ভূমি নুর আহাম্মদ গং ৪ ভ্রাতার নিকট বিক্রয় করেন। নুর আহামাদ, মকবুল আহাম্মদ ও তাদের অপর ২ ভ্রাতা ১৯০৮ দাগে ০৪.২০ ডিং ও ১৮৮৫ দাগে ০১.২০ ডিং ভূমিতে মালিক হইয়া পারিবারিক আপোষ বণ্টনে বাদীগনকে দখল প্রদান করেন। বাদীগন তাহা বসত বাড়ীর কাছারীর সামনে উঠান হিসাবে ভোগ দখল করে। বিবাদীগন সাবেক ১৯০৮ দাগের ০৪.২০ ডিং ভূমি বি/এস ১৩৮ খতিয়ানে ৪৩৯৫ দাগে ০৭ ডিং ভূমির সামিলে ও সাবেক ১৮৮৫ দাগের ০১.২০ ডিং ভূমি বি/এস ১০০৯ খতিয়ানে ৪৩৭৯ ডিং ভূমির সামিলে রেকর্ড করাইলে বাদীগনের স্বত্বের উপর কালিমা আরোপিত হয়। বাদীগন সূত্রে বর্নিত মামলা আনয়ন করিয়া ১/২ নংবিবাদী যাহাতে সাবেক ১৯০৮ দাগ বি/এস ৪৩৯৫ দাগের ০৪.২০ ডিং ভূমিতে আকার আকৃতি পরিবর্তন না করে ও অন্যত্র হস্তান্তর না করে তদমর্মে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা আনয়ন করিলে বিজ্ঞ নিম্ন আদালত ২৬/০৬/২০২৩ ইং তারিখ ১/২নং বিবাদীকে ১৫ দিনের মধ্যে কারন দর্শানোর নির্দেশ প্রদান করেন। বাদী পক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ নিম্ন আদালত স্থানীয় পরিদর্শনের নির্দেশ প্রদান করিলে বিজ্ঞ এডভোকেট কমিশনার স্বরেজমিনে পরিদর্শন করিয়া তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। বাদীপক্ষ ১৬/০৭/২০২৩ইং তারিখ আর্জি সংশোধন করিয়া তাহাদের এওজ ও খরিদা ৬৮ ডিং ভূমি বি/এস ১০৫৮ খতিয়ানে রেকর্ড হওয়া স্বীকার করিয়াছে।

২। ১-৬ নং বিবাদী আপীল্যান্ট গন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে হাজির হইয়া ০৯/০৭/২০২৩ ইং তারিখ বাদী পক্ষের আনিত অস্হায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনার বিরুদ্ধে লিখিত আপত্তি দাখিল করিয়া সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র দাখিল করিয়া প্রতিযোগীতা করে। ১- ৬ নং বিবাদী আপীলেন্ট গনের মৌরশ পেটি জরিপী দাড়রা ১৪৫ খতিয়ানে (সাত আনা) অংশে ২৮২.১৮ ডিং ভূমিতে, বাদী রেসপনডেন্টগনের উর্ধ্বতন মৌরশ আশ্রাফ আলী। (চার আনা) অংশে ১৬১.২৫ ডিং ভূমিতে ও অপর অংশীদার বাদশা মিয়া (পাঁচ আনা) অংশে ২০১.৫৬ ডিং ভূমিতে মালিক দখলকার নিযুক্ত ছিলেন। আশ্রাফ আলীর পুত্র বাদী গনের পিতা নুর আহাম্মদ ও মকবুল আহাম্মদ ১ম পক্ষ থাকিয়া এবং জানবক্সের পুত্র নুরুল হক ও আবদুর রব ২য় পক্ষ থাকিয়া ১১/১১/১৯৫৮ ইং তারিখের ৪৯৯৩ এওজ দলিল মুলে ১ম পক্ষ নালিশী খতিয়ানে ৬৪ ডিং ভূমি প্রাপ্ত হয় এবং ২য় পক্ষ বে-নালিশী খতিয়ানে ৯৬ ডিং ভূমি প্রাপ্ত হয়। মকবুল আহাম্মদ ও নুর আহাম্মদ এওজ সূত্রে প্রাপ্ত ভূমি সাবেক ১৮৮১/১৯৩৫/১৯৩৬/১৮৮৯/১৮৮৭/১৮৮৫/১৮৯৪/১৮৯৩/১৯০২/১৯০০/১৮৭৬/১৮৭৭ দাগে দখল গ্রহন করিয়া তাহা বাদী গনের নামীয় বি/এস ১০৫৮ খতিয়ানে রেকর্ড করাইয়াছে। ৪৯৯৩/২৫০৫ নং দলিলে নালিশী সাবেক ১৯০৮/১৮৮৫ দাগ উল্লেখ থাকিলেও বাদীগনের মৌরশ তাতে দখল না নেওয়ায় বি/এস ১০৫৮ খতিয়ানে নালিশী ভূমি রেকর্ড হয় নাই। স্কুল মালিক জান বন্ধের ৫ পুত্রের মধ্যে পারিবারিক আপোষ বণ্টনে জাকির হোসেন সাবেক ১৯০৮ দাগে ০৭ ডিং ভূমি একক মালিক দখলকার থাকাবস্হায় তাহা আবদুল কাদেরের নামে বি/এস ১৩৮ খতিয়ানে ৪৩৯৫ দাগে রেকর্ড হয়। আবদুল কাদেরের ওয়ারিশ ১-৬ নং বিবাদী আপীলেস্টগনের মধ্যে পারিবারিক আপোষ বণ্টনে ৪৩৯৫ দাগের ০৭ ডিং ভূমি ২ নং বিবাদী আবদুর রহিম প্রাপ্ত হইয়াছে। উক্ত ০৭ ডিং ভূমিতে আপীলেন্ট গনের মৌরশের আমলের মূল্যবান বৃক্ষ ও খড়ের গাদা বিদ্যমান। মূল বসত অংশে বসবাসের স্থান সংকুলান না হওয়ায় ২ নং বিবাদী ৪৩৯৫ দাগের ০৭ ডিং ভূমি বসত উপযোগী ভূমিতে পরিনত করিয়া এপ্রিল/২৩ইং মাসে ৪ তলা ফাউন্ডেশন দিয়া ৪৫, ৩০ ফুট পরিমাপের বসত বাড়ী নির্মান আরদ্ধ করে।

৩। ধনেজনে বলিয়ান বাদী রেসপনডেন্টগন ২ নং বিবাদীর বিল্ডিং নির্মানে ইর্ষান্বিত হইয়া নির্মান কাজ বন্ধ করার কৌশল গ্রহন করিয়া ০৭ ডিং ভূমি বিবাদী আপীলেন্টগন হইতে খরিদ করার জন্য চাপ প্রয়োগ করিতে থাকে। ইহাতে বাদীগন ক্ষিপ্ত হইয়া আপীলেন্টগনকে ক্ষতিগ্রস্হ করার জন্য সূত্রে বর্নিত মামলা আনয়ন করিয়া প্রতারনার আশ্রয়ে স্হিতাবস্থা বজায় রাখার আদেশ প্রাপ্ত হয়। ইহাতে ২ নং বিবাদী আপীলেন্ট ৫ লক্ষ টাকার নির্মান সামগ্রী নষ্ট হয়। ১ নং বাদী স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে ১/২নং বিবাদীর বিরুদ্ধে ২২/০৬/২০২৩ ইং তারিখ অভিযোগ করিলে ইউ,পি সদস্যগন তদন্ত করতঃ কাগজপত্র পর্যালোচনা করিয়া বাদী পক্ষ মালিক সাব্যস্ত হইলে বাদীকে দখল দিবার সুযোগ আছে মর্মে সালিশী রায় প্রদান করেন। পক্ষগন উক্ত রায় মানিয়া নেয়। বাদীগন সাবেক ১৯০৮ দাগ ও বি/এস ৪৩৯৫ দাগের ভূমিতে কখনোই দখলে ছিলোনা ও বর্তমানেও নাই এবং বাদী পক্ষ ৪৯৯৩/২৫০৫ নং দলিল মূলে ৪৩৯৫ দাগে দখল পায় নাই। ২ নং বিবাদী কর্মস্হল দক্ষিন আফ্রিকা হইতে ছুটিতে আসিয়া নালিশী ভূমিতে বসত ঘর নির্মান আরম্ভ করে। হাল ৪৩৯৫ দাগ বসত বাড়ীর সম্মুখ ভাগে অবস্থিত এবং ২ নং বিবাদী তথায় বসত ঘর নির্মান করিলে বাদীদের টিন সেডের দালানঘর আড়ালে পড়িয়া যাইবে বিধায় বাদী ইর্ষান্বিত ও ক্ষিপ্ত হইয়া মিথ্যা উক্তিতে মামলা করে। নালিশী ভূমি কখনোই উঠান ছিলো না। এবং নালিশী ৪৩৯৫ দাগের ভূমি বসত অনুপযোগী উচু নিচু ভূমি হয়। ২ নং বিবাদী অনেক অর্থ ব্যয় করিয়া বসত উপযোগী ভূমিতে পরিনত করে। ১-৬ নং বিবাদী আপীলেন্ট পক্ষ বাদীগনের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনার বিরুদ্ধে লিখিত আপত্তি দাখিল করিয়া দ্রুত শুনানীর প্রার্থনা করিলে ১৬/০৭/২০২৩ইং তারিখ আপত্তি শুনানীর জন্য দিন ধার্য্য হয়। উক্ত তারিখে বিজ্ঞ নিম্ন আদালত বাদী পক্ষের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা মঞ্জুর করতঃ ১-৬ নং বিবাদীগনকে নালিশী ভূমিতে কোনরুপ নির্মান কাজ করে আকার আকৃতি পরিবর্তন হতে এবং নালিশী ভূমি অন্যত্র হস্তান্তর করা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ প্রদান করেন। বিবাদী আপীলেন্টগন উক্ত ১৬/০৭/২০২৩ ইং তারিখের আদেশ দ্বারা বিশেষ ভাবে ক্ষতিগ্রহ হইয়া অপরাপর অজুহাত সহ নিম্ন্য অজুহাতে বর্তমান আপীল মামলা আনয়ন করিতেছে।

অজুহাত সমূহ এই

ক। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত কর্তৃক প্রদত্ত ১৬/০৭/২০২৩ ইং তারিখের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা মঞ্জুরের আদেশ একান্ত মনগড়া আইন, ইকুইটি, নথিসহ প্রমান ও নজিরের মর্মধর্ম বিরোধ বিধায় তাহা কিছুতেই বহাল ও বলবৎ থাকিতে পারে না।

খ। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত কর্তৃক প্রদও তর্কিত অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা মঞ্জুরের আদেশ অযৌক্তিক ও বিবেচনা প্রসুত নয় বিধায় তাহা সর্ববাবস্হায় রদ ও রহিত যোগ্য বটে।

গ। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার বিষয় নিস্পত্তি করিতে যাইয়া সঠিক ভাবে বিবেচ্য বিষয় প্রনয়ন করে নাই। এবং প্রনিত বিবেচ্য বিষয় সমূহ পৃথক পৃথক ভাবে পর্যালোচনা না করিয়া এবং সকল বিবেচ্য বিষয় বিবাদীর অনুকুলে সিদ্ধান্ত গ্রহন না করিয়া মারাত্মক ভুল কাজ করিয়াছেন।

ঘ। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত বাদী পক্ষের দাখিলী ৪৯৯৩ নং এওজনামা ও ২৫০৫ নং সাফ কবলা মুলে বাদীপক্ষকে সাবেক ১৯০৮ দাগে ০৪.২০ ডিং ভূমিতে ভোগ দখলে আছে সাব্যস্হ করেন। বিজ্ঞ নিম্নম্ন আদালত পুনঃরায় মোকদ্দমার মৌখিক ও দালিলিক স্বাক্ষ্য গ্রহন শেষে সাবেক ১৯০৮ দাগে ০৪.২০ ডিং ভূমিতে কে মালিক দখলকার তদ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হইবে সাব্যস্হ করেন। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত স্ববিরোধী আদেশ প্রদান করায় তাহা রদ ও বাতিল হইবে।

ঙ। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত স্বাক্ষ্য প্রমান গ্রহন ব্যতীত ও নথিসহ ১-৬ নং বিবাদী পক্ষের দাখিলী কাগজ পত্র পর্যালোচনা নাকরে বাদী পক্ষকে নালিশী ভূমিতে ভোগ দখলে আছে সাব্যস্ত করিয়াছেন। বাদীপক্ষ ৪৯৯৩/২৫০৫ নং দলিলের ভূমি বি/এস ১০৫৮ খতিয়ানের৪৩৬২/৪৩৭২/৪৩৭৫/৪৩৭৮//৪৩৭৯/৪৩৮১/৪৩৮২/৪৩৮৪/৪৩৯১/৪৪০২/৪৩৯৯/৪৩৮১ দাগে রেকর্ড করাইয়া ভোগ দখল করিতেছে। ১-৬ নং বিবাদীপক্ষ তাহা প্রমানের জন্য মাঠ জরিপী ১৪৪৩/১৪৪৪/১৪৪৫/ ১৫২৬/১৫২৭ খতিয়ান সংক্রান্ত ডি/পি ১০৫৮/১৩৮ খতিয়ান মূল মামলায় দাখিল করিয়াছে। উক্ত মাঠ জরিপী খতিয়ান সাবেক দাগ ও নতুন দাগ পাশাপাশি রহিয়াছে। ইহাতে দেখা যায় বাদী পক্ষ এওজ ও খরিদা ভূমি বে-নালিশী দাগে রেকর্ড করাইয়াছে। বাদীগন দুলোর্ভের বশবর্তীতে ২ নং বিবাদীর দখলীয় ভূমি দাবী করিয়াছে। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত ১-৬ নং বিবাদী পক্ষের দাখিলী মাঠ জরিপী খতিয়ান পর্যালোচনা না করিয়া বিবাদী আপীলেন্ট গনকে ন্যায় বিচার হইতে বঞ্চিত করিয়াছেন।

চ। বাদীপক্ষ সাবেক ১৯০৮ দাগ ও বি/এস ৪৩৯৫ দাগে ০৭ ডিং আন্দরে ০৪.২০ ডিং ভূমি দাবী করিয়াছে। পক্ষান্তরে ২ নং বিবাদী উক্ত ০৭ ডিং ভূমি আন্দরে ৪৫ x ৩০ ফুট পরিমাপের বসত ঘর নির্মান করিতেছে। বাদীপক্ষের দাবি প্রমান হইলে দাগে অব্যবহৃত ভূমিতে বুঝ নেওয়ার সুযোগ রহিয়াছে। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত প্রকৃত বৈধ দখলকার ২ নং বিবাদীকে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আদেশ দ্বারা বারিত করিয়া বিবাদী আপীলেন্টকে ন্যায় বিচার হইতে বঞ্চিত করিয়াছেন। তদাবস্হায় তর্কিত আদেশ কিছুতেই বহাল ও বলত থাকিতে পারে না।

ছ। ২নং বিবাদী অত্র মামলা আনয়নের ৩ মাস পূর্বে নালিশী ১৯০৮ দাগের ভূমিতে থাকা বৃক্ষ কাটিয়া ও নিচু খাদ খন্দকে মাটি ভরট করিয়া ৪ তলা ফাউন্ডেশনের ৪৫ x ৩০ ফুট পরিমাপের বসত ঘর নির্মান আরম্ভ করিয়াছে। বাদী পক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে নালিশী ভূমির স্থানীয় পরিদর্শন করিয়া এডভোকেট কমিশনার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করিয়াছে। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত দাখিলী পরিদর্শন প্রতিবেদন পর্যালোচনা না করিয়া তর্কিত আদেশ প্রদান করিয়াছেন এবং ইহাতে বিবাদী আপীলেপ্টের অপূরনীয় ক্ষতি হইয়াছে, যাহা টাকার অংকে পূরন যোগ্য নহে।

জ। নালিশী বি/এস ৪৩৯৫ দাগের ভূমি কখনোই উঠান ছিলো না ও বর্তমানে ও নাই। উক্ত দাগের ০৭ ডিং ভূমি মুল বসত বাড়ীর বাহিরে সম্মুখের উচু নিচু বসত অনুপযোগী ভূমি ছিলো। ২ নং বিবাদী তাতে অনেক অর্থ ব্যয় করিয়া বসত উপযোগী ভূমিতে পরিনত করে। প্রভাবশালী, ক্ষমতাধর, অর্থশালী ও বিত্তবান বাদীগন এই নিরীহ বিবাদী আপীলেন্টপনের জায়গা সম্পত্তি গ্রাস করার অসৎ উদ্দেশে বর্তমান মিথ্যা মামলা আনয়ন করে। ২ নং বিবাদীর নির্মানাধীন বিল্ডিং এর কাজ সমাপ্ত হইলে বাদীদের টিন সেডের দালান ঘর আড়ালে অদৃশ্য হইয়া যাইবে আশংকায় দাম্ভিক বাদীগন লোভের বশবর্তীতে তর্কিত মিথ্যা অহায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা আনয়ন করে।

ঝ। বাদীগনের দাবীকৃত পেটি জরিপী (দাড়রা) ১৪৫ খতিয়ানে মোট ভূমি ৬৪৫ ডিং ভূমি হয়। উক্ত ভূমির মালিক গনের মধ্যে উক্ত খতিয়ানের ভূমি বাবত কোন চিহ্নিত বণ্টন নাই। বাদীপক্ষ তাদের এওজ ও খরিদা ভূমি বে- নালিশী বি/এস খতিয়ানে রেকর্ড করাইয়া আর্জিতে গোপন রাখিয়াছে। তদাবস্হায় আইনতঃ ও ন্যায়তঃ খতিয়ানের সম্যক ভূমি আর্জিভূক্ত করিয়া সকল অংশীদাদরকে পক্ষ করিয়া বণ্টনের মামলা ব্যতীত Semple স্বত্ব ঘোষনার মামলায় বাদী পক্ষের প্রতিকার নাই সাব্যস্থ করা বিজ্ঞ নিম্ন আদালতের একান্ত উচিত ছিলো।

ঞ। নালিশী পেটি জরিপী (দাড়রা) ১৪৫ খতিয়ানে ৪৯৯৩নং এওজ দলিল মুলে ১৯টি দাগে ৬৪ ডিং ভূমি এবং ২৫০৫ নং সাফ কবলা মুলে ১২ টি দাগে ৩০ডিং ভূমি হস্তান্তর হয়। কিন্তু কোন দাগে কতটুকু ভূমি হস্তান্তর হইয়াছে তাহা দলিলে সুনির্দিষ্ট ভাবে উল্লেখ নাই। বাদীগন মনগড়া ভাবে ১৯০৮ দাগে ০৪.২০ ডিং ভূমির মালিকানা দাবী করিয়াছে। বর্নিত উভয় দলিলে সাবেক ১৯০৮ দাগে হস্তান্তরিত ভূমি চিহ্নিত নাই। তদাবস্হায় বিজ্ঞ নিম্ন আদালত বাদীপক্ষকে নালিশী ১৯০৮ দাগে ০৪.২০ ডিং ভূমিতে মালিক সাব্যস্হ করিয়া মারাত্মক ভুল করিয়াছেন। তদাবস্থায় তর্কিত অস্হায়ী নিষেধাজ্ঞার আদেশ রদ ও বাতিল হইবে।

ট। নালিশী সাবেক ১৯০৮ দাগের ভূমি আপীলেন্ট গনের মৌরশ জাকির হোসেন মালিক দখলকার থাকাবস্থায় ২০০১ইং সনে আবদুল কাদেরের নামে বি/এস ১৩৮ খতিয়ানে ৪৩৯৫ দাগে ০৭ ডিং ভূমি রেকর্ড হয়। বাদী বিবাদীগন একই বাড়ীতে বসবাস করে এবং বিবাদী আপীলেন্টগন মৌরশানুক্রমে উক্ত ০৭ ডিং ভূমি ভোগ দখলে থাকা বাদী ও এলাকার সর্ব্বসাধারন প্রত্যক্ষ করিতেছে। বি/এস খতিয়ান প্রচারের সময় বাদীগন কিংবা তাদের মৌরশ উক্ত দাগের ভূমি দাবী করিয়া কোন আপত্তি উপস্থাপন করে নাই। প্রকৃত পক্ষে বাদী ও বিবাদীপক্ষ ও তাহাদের মৌরশ স্বরেজমিনে উপস্থিত থাকিয়া নিজ নিজ মালিকী দখলীয় ভূমি বাবত বি/এস খতিয়ান প্রচার করাইয়াছে। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত বি,এস খতিয়ান প্রচারের দীর্ঘ ২৩ বৎসর পর হয়রানী মুলক মামলা আনায়ন করিয়াছে সাব্যসহ করিয়া বাদীগনের আনীত অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা খারিজ করা একান্ত উচিত ছিল।

ঠ। ২ নং বিবাদী আপীলেন্ট এপ্রিল/ ২০২৩ইং মাসের প্রথম দিকে ১৯০৮ দাগে ৪৫x ৩০ ফুট পরিমাপের ভূমিতে গাছ কাটিয়া খনন ভরট ক্রমে বসত উপযোগী ভূমিতে পরিনত করিয়া ৪ তলা ফাউন্ডেশন দিয়া ৭ফুট উচ্চতা পিলার ঢালাইয়ের কাজ সম্পন্ন করিয়া বসত উপযোগী ভিটিতে পরিনত করিয়াছে এবং বসত ঘর নির্মানের বাকী কাজ সম্পন্ন করার জন্য গৃহ নির্মান সামগ্রী (রড, সিমেন্ট, বালু, কংক্রিট) অপেক্ষামান রহিয়াছে। বাদী পক্ষের মিথ্যা অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা প্রার্থনার প্রেক্ষিতে বিবাদী আপীল্যান্টগনের ৫ লক্ষ টাকার নির্মান সামগ্রী নষ্ট হইয়া গিয়াছে। বাদী রেসপনডেন্টগন মিথ্যা মালিকানার দাবীতে মিথ্যা মামলা আনয়ন করিয়া গরীব বিবাদী আপীলেন্টগনকে আর্থিক ক্ষতিগ্রস্হ করায় বাদী রেসপনডেন্টগন আইনের বিধান মতে আপনীলেন্টগনকে ক্ষতিপূরন পরিশোধ করিতে বাধ্য বটে। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত বাদী রেসপনডেন্টগনের মিথ্যা অহায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা না মঞ্জুর করিয়া আইনের বিধান মতে বাদীগনকে ১-৬ নং বিবাদীর বরাবরে ক্ষতি পূরন প্রদানের আদেশ দেওয়া একান্ত উচিত ছিল।

ড। বাদীপক্ষের ০২/০৭/২০২৩ইং তারিখের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ নিম্ন আদালত এডভোকেট আবদুল ওয়াদুদ শাকিল করিলে এডভোকেট কমিশনার সাহেব সাহেবকে এডভোকেট কমিশনার নিয়োগ ০৪/০৭/২০২৩ইং তারিখ স্বরে জমিনে পরিদর্শন করিয়া ১৬/০৭/২০২৩ইং তারিখ পরিদর্শন প্রতিবেদন দাখিল করিয়াছে। দাখিলী প্রতিবেদনে সাবেক ১৯০৮ দাগ সংক্রান্ত বি/এস ৪৩৯৫ দাগের নালিশী ভূমিতে ২ নং বিবাদী গাছ কাটিয়া মাটি ভরট ক্রমে বিল্ডিং নির্মানর কাজ শুরু করিবার কথা উল্লেখ করিয়াছে এবং নালিশী ভূমি উঠান হিসাবে থাকা প্রমান হয় নাই। বিজ্ঞ নিম্ন আদালত পরিদর্শন প্রতিবেদন অনুযায়ী বিবাদী আপীলেন্টগনকে নিষেধাজ্ঞার প্রার্থীত ভূমিতে মালিক দখলকার সাব্যস্ত না করিয়া আপীলেন্টগনকে ন্যায় বিচার হইতে বঞ্চিত করিয়াছেন।

ঢ। বক্রী শুনানীর কালে বাচনিক নিবেদন করা হইবে।

অতত্রব, বিবাদী আপীলেন্টগন বিনীত প্রার্থনা করেন যে, অত্র আপীল মামলা গ্রহন পূর্বক বিজ্ঞ নিম্ন আদালতের নদী তলবে আনিয়া বাদী রেসপনডেন্টগনের উপর নোটিশ জারী অন্তে পক্ষগনকে শুনানীর পর তর্কিত ১৬/০৭/২০২৩ইং তারিখের অস্হায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা মঞ্জুরের আদেশ রদ ও বাতিল পূর্বক ১- ৬নং বিবাদী আপীলেন্ট গনের বিরুদ্ধে আরোপিত অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞানর আদেশ অত্র আপীল মামলা নিষ্পত্তি সাপেক্ষে স্থগিতাদেশ দানের মর্জি হয়।

তফসিল নিষেধাজ্ঞার প্রার্থীত ভূমির পরিচয়

জেলা-ফেনী, থানা- ছাগলনাইয়া, মৌজে- সাবেক ১৩৭ নং হাল ৫৩ নং পাঠান নগর মধ্যে সি/এস ১৪৫ ও এস/এ ১৪৮ খতিয়ানের ও বি/এস ১৩৮ খতিয়ানের সাবেক ১৯০৮ দাগ জাল ৪৩৯৫ দাগ ভিটি ০৭ ডিং আন্দরে ০৪.২০ ডিং ভূমি। যাহার উত্তরে- চলাচলের পথ, দক্ষিনে- ইসমাইল গং, পূর্বে- ইসমাইল গং, পশ্চিমে-বাদীগন, কাচারী ঘর।

সার্টিফিকেট

আমি আপীলেন্ট পক্ষের কাগজ পত্র পর্যালোচনা করিয়া অত্র আপীল মোকদ্দমা অজুহাত সমূহ প্রস্তুত করিয়াছি। আপীলেন্ট পক্ষ অত্র আপীল মামলায় জয় লাভ করার উজ্জ্বল সম্ভাবনা রহিয়াছে। আপীল শুনানীকাল আমি আপীলেন্ট পক্ষে শুনানীতে অংশ  গ্রহন করিবো।

ইতি/তাং-

Related Posts

Hello world!

Welcome to WordPress. This is your first post. Edit or delete it, then start writing!

দেওয়ানী কার্যবিধি আইনের ৩৯ আদেশের ১/২নং রুলের বিধানমতে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা। injunction.

মাননীয়, ছাগলনাইয়া সহকারী জজ আদালত, ফেনী জেলা- ফেনী। দেওয়ানী মোকদ্দমা নং- ১৮২/২ ইং।               মোঃ রফিক গং        বনাম           আবুল কালাম গং                 ——বাদী                              —- বিবাদী বাদীপক্ষে ১/২নং বিবাদীর বিরুদ্ধে দেওয়ানী…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You Missed

Hello world!

  • By admin
  • April 9, 2024
  • 19 views

দেওয়ানী কার্যবিধি আইনের ৩৯ আদেশের ১/২নং রুলের বিধানমতে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা। injunction.

  • By admin
  • April 1, 2024
  • 39 views

বিবিধ আপিল এর আর্জির নমুনা। Drafting।

  • By admin
  • April 1, 2024
  • 25 views

হাইকোর্ট পারমিশন লিখিত পরীক্ষা প্রস্তুতি. (Writ Question No-06)HCD ENROLMENT PREPARATION

  • By admin
  • April 1, 2024
  • 19 views

হাইকোর্ট পারমিশন লিখিত পরীক্ষা প্রস্তুতি. (Writ Question No-05)

  • By admin
  • April 1, 2024
  • 25 views

হাইকোর্ট পারমিশন লিখিত পরীক্ষা প্রস্তুতি. (Writ Question No-03)

  • By admin
  • March 31, 2024
  • 32 views